‘নৌ পুলিশের বাবুর্চি’ ছিলেন ১৩ ঘন্টা পানিতে ডুবে থাকা সুমন বেপারী

0
747
সুমন বেপারী
সুমন বেপারী

বুড়িগঙ্গায় মনিং বার্ড লঞ্চ ডুবির ১৩ ঘন্টা পর জীবিত এবং অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া সুমন ব্যাপারী সদরঘাট টার্মিনাল নৌ থানার পুলিশের একজন বাবুর্চি বলে চিন্হিত করেছেন সদরঘাটের বেশ কিছু হকার। গত বৃহস্পতিবার এমন তথ্য পাওয়া গেছে। হকারদের অভিযোগ বিআইডাব্লিউটি এর যগ্ম পরিচালক একেএম আরিফ উদ্দিন ও নৌ থানার ওসি রেজাইল করিম ভূঁইয়া সাজিয়েছিলেন এমন কাহিনি।

এদিকে সুমন একজন ফল ব্যবসা করলেও গত ২ বছর ধরে তিনি সদরঘাট নৌ থানা পুলিশের একজন বাবুর্চি হিসেবে কাজ করে আসছেন। মিটফোর্ড হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে গত ২৯ জুন রাত ১১ টায় সুমন ব্যাপারীকে ভর্তি করা হয়। পর্যায়ক্রমে ৮ জন ডাক্তার তাকে বিভিন্ন রকম পরীক্ষা নিরীক্ষা করেন।

ডাক্তারদের মতে, কেউ যদি ১২ ঘন্টা পানিতে ডুবে থাকেন তাহলে তার শরীরের চামড়া, চুল, পশম, হাত, পা মুখমন্ডল সাদা ফোসকা পড়ে এবং বালিতে চুল আঠালোও হয়ে যায়। কিন্তু সুমনের ক্ষেত্রে এমন কোন লক্ষণ পরিলক্ষিত হয়নি। সুমনের সুরাতহালে ১২ ঘন্টা পানিতে থাকারও কোন প্রকার লক্ষণও পাওয়া যায়নি। এমনকি তার পড়া লুঙ্গি ও গেঞ্জিতে কোন প্রকার নমুনা পাওয়া যায়নি।

সুমন মিডিয়ার সামনে বক্তব্য দিয়েছিলেন, লঞ্চ ডুবির সময় তিনি ইঞ্জিন ঘরে ছিলেন। সেখানে তিনি অনেক পানি পান করেন, পরে তিনি প্রস্রাব করে পেট খালি করেন।

এরপর তিনি ওখানেই ওজু করে সলাত আদায় করেন। উল্লেখ্য, পানির নিচে ১২ ঘন্টা আটকে থাকার কোন প্রকার চিহ্ন পাওয়া যায় নি। এদিকে বিআইডাব্লিউটি এর কর্মকর্তা ও নৌ পুলিশের সাজানো নাটক বলে আখ্যায়িত করেছেন মিটফোর্ড হাসপাতালের কয়েকজন অভিজ্ঞ ডাক্তার।

ডেস্করিপোর্টঃ সকাল বার্তা