কক্সবাজার ফিরে পেয়েছে তার চিরাচয়িত রুপ, অবাধে বিচরণ করছে ডলফিন

0
155

কোভিড-১৯ এর প্রকোপে স্থবির বিশ্ব। বাংলাদেশেও চলছে অঘোষিত লকডাউন। সারা দেশে চলছে সেনা মোতায়েন। পুলিশ এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েনে দেশের জনগন রয়েছেন যার যার ঘরে। ফলে দেশের গুরুত্বপূর্ণ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়া কিছুই খোলা নেই। এমন পরিস্থিতিতে দেশের পর্যটন এলাকায়ও জারি করা হয়েছে হুশিয়ারী। ফলে জনশূন্য হয়ে পড়েছে দেশের গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন স্থান গুলো। এরই মাঝে কক্সবাজর হয়ে পড়েছে পর্যটকহীন, ফলে সাগর ফিরে পেয়েছে তার আসল সুন্দর্য।

এমন অবস্থা বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায়। পর্যটক না থাকায় পরিবর্তন হচ্ছে ইকো সিস্টেমের। তাই সাগরের যে আসল বৈশিষ্ট তা ধীরে ধীরে ফিরে পাচ্ছে। নীল জলরাশির মাঝে অবাধে বিচরণ করছে ডলফিন। কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ঘেসে ভিড় করেছে একদল ডলফিন, এমন ভিডিও ধারণ করেছেন কক্সবাজারের স্থানীয় সার্ফার মাহাবুব রহমান। এমন দূর্লভ ভিডিও ইতিমধ্যে ভাইরাল সোস্যাল মিডিয়ায়। কক্সবাজার সমূদ্র সৈকতে প্রায় ৩০ বছর পরে দেখা মিললো এই ডলফিনের।

স্থানীয় সার্ফার মাহাবুব রহমান বলেন,“আমি দেখলাম সেখানে শুধু একটা ডলফিন নয়, বেশ কয়েকটা ডলফিন, আমি তাদেরকে অনুসরণ করা শুরু করলাম এবং তাদের কাছে গেলাম, তারা আমাকে গ্রহণ করে নিলো এবং আমার চারদিকে ঘুরতে শুরু করলো।”

কোলাহলপূর্ন কক্সবাজার পর্যটক শূন্য হয়ে পড়ায় শুধু ডলফিন নয়, বিচরণ করছে নানা জাতের প্রাণি। সমুদ্রে বেলা ভূমিতে বিচরণ করছে ছোট কাকড়াও। সমূদ্রের সৈকতে ছোট ছোট গর্ত করে বিচরণ করছে তারা অবাধে। মাহাবুবুর রহমান মনে করেন পর্যকদের বিচরণ না থাকায় পরিবর্তন আসছে ইকো সিস্টেমের। মাহাবুব রহমান রহমান বলেন,“কায়াক আছে এখানে, সার্ফিং আছে, আমাদের এসব প্রমোট করা উচিৎ। আমাদের সতর্ক থাকতে হবে, পর্যটকদের মাধ্যমে যেন সমুদ্র যেন কোন প্রকার দূষিত না হয়, কোন প্রকার প্লাষ্টিক বর্জ যেন সমুদ্রে না পড়ে।

ডলফিন বিচরণের এমন বিরল দৃশ্যে দেখে অবাক স্থানীয়রা। ডলফিন তার পূর্বের আবাস্থল ফিরে পাওয়ায় খুশী তারাও। ডলফিনের এমন আবাস যেন সবসময় ঠিক থাকে সেজন্য চেষ্টা করছেন স্থানীয়রা।

ডেস্করিপোর্টঃ সকাল বার্তা